মঙ্গলবার , অক্টোবর ১৫ ২০১৯
Breaking News
Home / বিভাগীয় সংবাদ / চট্টগ্রাম বিভাগ / দু’সত্নানকে ফেলে রাঙ্গুনিয়ায় পুলিশ প্রেমিকের হাত ধরে পালালেন প্রবাসীর স্ত্রী জেকি আক্তার

দু’সত্নানকে ফেলে রাঙ্গুনিয়ায় পুলিশ প্রেমিকের হাত ধরে পালালেন প্রবাসীর স্ত্রী জেকি আক্তার

নুরুল আবছার চৌধুরী, রাঙ্গুনিয়া: রাঙ্গুনিয়ার দক্ষিণ রাজানগর ইউনিয়নের সিকদার পাড়া গ্রামের দু’সন্তানকে ফেলে পুলিশ প্রেমিক মো. মোস্তফা খালেদ (২১) হাত ধরে পালালেন প্রবাসীর স্ত্রী জিয়াসমিন জেকি আক্তার (৩৬)। নগদ ৫ লক্ষ টাকা, ১৫ ভরি স্বর্ণলংকার ও মূল্যবান মালামাল সহ পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় গৃহবধুর স্বামী বাদী হয়ে রাঙ্গুনিয়া থানায় মামলা করেন। গত সোমবার দুপুরে পলাতক প্রেমিক যুগল রানীরহাট ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করতে এলে এ সময় জনতা তাদের ধরে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। এ ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেজবুকে ভাইরাল হলে রাঙ্গুনিয়া জুড়ে আলোচনার ঝড় উঠে।

জানা যায়, দক্ষিণ রাজানগর ইউনিয়নের ফুলবাগিচা গ্রামের ভাগ্যের বাড়ির আব্দুল মালেকের কন্যা জিয়াসমিন আকতার জেকির সাথে একই ইউনিয়নের রাজাভুবন সিকদারপাড়া এলাকার দেলোয়ার সিকদারের পুত্র মো: মনছুরের সাথে গত ১৩ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের ৩ মাসের মাথায় প্রবাসী স্বামী সৌদি আরবের নিজ কর্মস্থলে ফিরে যান। বিয়ের দুই বছর পর স্ত্রীর কোলজুড়ে এলো কন্যা সন্তান মৌমিতা। কন্যা সন্তানের ৫ বছর বয়সে গৃহ শিক্ষক হিসেবে বাসায় রাখা হলো একই গ্রামের কলেজ ছাত্র মোস্তফা খালেদ কে। গৃহ শিক্ষক মৌমিতাকে পড়ানোর পাশাপাশি তার মায়ের সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। ২০১৫ সালের শেষের দিকে তাদের দ্বিতীয় মেয়ের আফ্রা’র জন্ম হয়।

গৃহ শিক্ষক মোস্তফা খালেদ এইচএসসি পাস করে আর্মড পুলিশ ব্যাটেলিয়ান (এপিবিএন) কনস্টেবল পদে চাকরি নেয়। নতুন চাকরিতে যোগদানের পর গত ২৪ মার্চ প্রেমের টানে নিজের দুই সন্তান মৌমিতা (১১), আপরা (৮) কে ঘরে রেখে পালিয়ে যায়। পরদিন ২৫ মার্চ রাঙ্গুনিয়া থানায় সাধারণ জিডি করেন জেকির স্বামী সৈয়দুল আলম সিকদার। পালিয়ে যাওয়ার পরদিন আদালতে গিয়ে বিয়ে করেন প্রেমিক যুগল।

জেকির আগের স্বামী মো: মনছুর বলেন, ‘ঘরে রাখা ৫ লাখ টাকা ও ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে পর পুরুষের সাথে সে পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আমি আর ঘরে নিতে পারছি না। দুই কন্যা সন্তান আমার কাছে বড় হবে।’ জিয়াছমিন আক্তার জেকি বলেন, ‘আমার আগের সংসারে আমি সুখী ছিলাম না। তাই আমি সুখী হতে খালেদকে স্বামী হিসেবে গ্রহণ করি।’
রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ মো: আহসানুল কাদের ভূঞা বলেন, ‘নিখোঁজ ডায়েরির ভিত্তিতে তাদের থানায় আনা হয়। জেকি আকতার সদ্য বিয়ে করা স্বামীর সাথে ঘর সংসার করার আগ্রহ দেখায়। ***
ছবির ক্যাপশন : প্রেমিক পুলিশ সদস্য মোস্তফা খালেদ, গৃহবধু জিয়াসমিন আকতার জেকি, দুই সন্তান মৌমিতা ও আপরা।

About Mohammad Firoz

Check Also

উত্তর রাঙ্গুনিয়ার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বৃক্ষ রোপণ ও ১০০০টি গাছের চারা বিতরণ সম্পন্ন

রাগুনীয়া প্রতিনিধি: ৭ই সেপ্টেম্বর ২০১৯ইং (শনিবার)চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া উপজেলার উত্তরাংশে বিভিন্ন ইউনিয়নের নিম্নোক্ত ১৩টি শিক্ষা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ