ঠাকুরগাওয়ে একজনকে কুপিয়ে হত্যা

0

ঠাকুরগাঁওয়ে সামশুল আলম (৩০) নামে এক ব্যাক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

মঙ্গলবার রাত ১০টার সময় জেলার সদর উপজেলার শিবগঞ্জ চিকনডোবা এলাকার একটি আমবাগান থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত সামশুল হক সদর উপজেলার শিবগঞ্জ শিববাড়ী এলাকার আব্দুল খালেকের ছেলে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভীরুল ইসলাম জানান, স্থানীয়রা রাতে আম বাগানের ভিতর মরদেহ দেখে পুলিশে খবর দেয়।পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। ময়না তদন্তের জন্য ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করা হবে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। কি কারণে হত্যা করা হয়েছে কে করেছে তা তদন্তের পর নিশ্চিত করা যাবে।

কীভাবে কারা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, সে বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু বলতে পারেনি পুলিশ।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ওসি বলেন, নিহত শামসুল হকের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের দাগ পাওয়া গেছে; এছাড়াও তার মাথায় ধারালো কিছু দিয়ে অসংখ্যবার কুপিয়ে জখম করা হয়েছে; এতে প্রচুর রক্তক্ষরণে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

ওসি তানভিরুল বলেন, গত শনিবার রাত সাড়ে ১১টার জামালপুর ইউনিয়নের মধ্যপারপুগী গ্রামের বাসিন্দা মোহাম্মদ জিলানির ছেলে রাজু ইসলামকে (১৮) কুপিয়ে জখম করা হয়। এ ঘটনায় মোহাম্মদ জিলানি বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলা শামসুল হক (নিহত) এক নম্বর আসামি ছিলেন।

জামালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম চৌধুরী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “শামসুল হক এলাকায় কোপা শামসুল নামেই বেশ পরিচিতি ছিল সে। কারণ সে বিভিন্ন সময়ে কারণে অকারণে মানুষকে জখম করত।

“এছাড়াও শামসুল হক এলাকায় নানা অপরাধমুলক কাজ পরিচালনা করত। স্থানীয় ও তার পরিবারের সদস্যদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে শামসুলকে এ গ্রামে থেকে অন্যত্র সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এরপর থেকে শামসুল হক তার পরিবারের সদস্য ও স্থানীয় লোকজনর উপর নানা রকম অত্যাচার করে আসছিল।” 

শামসুল হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে এবং এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান ওসি তানভিরুল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here