নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর নিয়ে সংশয়

2

করোনা ভাইরাসের কারণে স্থবিরতা নেমে এসেছে সারাবিশ্বে। ইতোমধ্যে এ ভারইরাসের সংক্রমন রোধে একে একে বন্ধ হয়ে গিয়েছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের সব খেলা। ক্রিকেটে এর প্রভাব পড়েছে অনেক আগেই। লন্ডভন্ড হয়ে গেছে ক্রিকেটের সূচি। চলতি বছর আগস্টে বাংলাদেশ সফরে আসার কথা রয়েছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের আওতায় দুটি ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশ আসার কথা ছিল কেন উইলিয়ামসনদের। কিন্তু করোনা ভাইরাসের বর্তমান পরিস্থিতিতে সম্ভাব্য ওই সফর নিয়ে সংশয় আছে বলে জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটে বোর্ডের প্রধান নির্বাহী ডেভিড হোয়াইট।

এ খবর পাবার পর বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তদের হতাশ হবারই কথা। কারণ কদিন আগে দেশের টাইগার ভক্তরা তাকিয়ে ছিল আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সিরিজের দিকে। জুনের শুরুতে বাংলাদেশে এসে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের আওয়াত দুটি ম্যাচ খেলার কথা ছিল অজিদের। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক টিম পেইন বলছেন, এই সিরিজ হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে! এর ফলে জুনের এই সফরের অনিশ্চয়তার মধ্যেই দুসংবাদ জানিয়ে দিল কিউইরা। সামনে ব্যস্ত ক্রিকেট সূচি নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের। জুন-জুলাইয়ে স্কটল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ খেলার কথা কেন উইলিয়ামসনদের। তারপর আসার কথা বাংলাদেশে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে আগস্টের বাংলাদেশ সফরের পাশাপাশি জুন-জুলাইয়ের সিরিজগুলো নিয়েও অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

গতকাল অকল্যান্ডে সংবাদমাধ্যমকে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটে বোর্ডের প্রধান নির্বাহী ডেভিড হোয়াইট বলেন, পরিস্থিতি খুবই হতাশাজনক। বিশেষ করে যারা খেলার সঙ্গে যুক্ত, তাদের জন্য। তবে সার্বিকভাবে বিষয়টি নিয়ে ভাবতে হবে। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে পুরো বিশ্ব এখন ঘরবন্দি। এখন মানবজাতির ভালো থাকার পাশাপাশি সমাজের ভালোও চিন্তা করতে হবে আমাদের।

তিনি আরো বলেন, সব বন্ধ হয়ে যাওয়াতে ক্রিকেটের যে সমস্যা হচ্ছে, সেটা আমরা বুঝতে পারছি। এখন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটের টেকসই অবস্থা নিশ্চিত করার দিকে মনোযোগ দিতে হবে আমাদের।’

সামনের সফরগুলো নিয়ে এখনই সিদ্ধান্তে আসতে চান না হোয়াইট। তবে পরিস্থিতি যেমন, তাতে করে করোনা ভাইরাস শঙ্কা না কাটা পর্যন্ত কোনো সফর না করার ইঙ্গিত দিয়েছেন। বাংলাদেশের সফরটি কিছুটা দূরে থাকায় সেটা নিয়ে পরে ভাবতে চায় ক্রিকেট নিউজিল্যান্ড।

তবে একটা বিষয় অবশ্য স্বস্তিই দিচ্ছে হোয়াইটকে। করোনা ভাইরাসের প্রকোপে যখন ক্রিকেট বন্ধ হওয়া শুরু করেছিল, ততক্ষণে নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেট মৌসুম শেষ। ঘরের মাঠে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ স্থগিত করতে হয়নি কিউইদের। হোয়াইট বলছিলেন, ‘নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের ভাগ্য ভালো। আমরা যখন গ্রীষ্মের শেষে এসে পড়েছিলাম, তখন এই সংকট শুরু হয়েছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here